,

সময় টিভির সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মাদারীপুরে সরকারী টাকা চুরির অভিযোগ’’

সাব্বির হোসাইন, আজিজ মাদারীপুর : মাদারীপুর জেলায় সময় টেলিভিশনে বিভিন্ন সরকারী দপ্তরে নিউজ করার ভয় দেখিয়ে দৈনিক দেশকাল পত্রিকার নাম ব্যবহার করে, সময় টেলিভিশনের স্টাফ রিপোটার(মাদারীপুর জেলায় দায়িত্বে থাকা প্রতিনিধি) সঞ্জয় কর্মকার অভিজিৎ@ অভিজিৎ কর্মকার, সরকারী দপ্তরের টেন্ডার নোটিশ প্রকাশ করার মাধ্যমে জেলা এলজিইডি অফিস, উপজেলা এলজিইডি অফিস, সড়ক ও জনপদ বিভাগ, জেলাপরিষদ অফিস, গনপূর্ত অফিস, পৌরসভাসহ জেলার বিভিন্ন সরকারী অফিসের প্রায় ২ থেকে ৩ লাখ টাকা মিথ্যা তথ্যদিয়ে প্রতারনার মাধ্যমে চুরি’ করার অভিযোগ রয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধীক কর্মকর্তা জানান, সময় টেলিভিশনে আমাদের বিরুদ্ধে নিউজ করার ভয় দেখিয়ে সরকারী বিজ্ঞাপন দেশকাল পত্রিকায় নিতেন এবং আমারা তার ভয়ে পত্রিকার বিল কখনোই চেক করতে সাহস পাইতাম না। তবে উপজেলা এলজিইডির কয়েক কর্মকর্তা তথ্য দিতে গরিমষি করছে এবং সময় টিভির সাংবাদিকের সাথে মিটমাট করে দেওয়ার কথা বলে।
সরেজমিন ও অনুসন্ধানে গিয়ে জানাযায়, মাদারীপুর সদর উপজেলা এলজিইডি অফিস থেকে গত ০৯/০৩/১৬ ইং তারিখে দৈনিক দেশকাল পত্রিকায় ৫*২০=১০০ কলাম সাইজে একটি টেন্ডার নোটিশ বিজ্ঞাপন আকারে ছাপানো হয়েছে। যাহার প্রকৃত তথ্য মন্ত্রনালয়ের সুত্রে সরকারী নিধারন ১ কলাম ইঞ্চি ১০৪ (একশত চার)টাকা করে (১০০*১০৪)=১০,৪০০(দশ হাজার চারশত) টাকা। কিন্তু দৈনিক দেশকাল পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি সঞ্জয় কর্মকার অভিজিৎ@ অভিজিৎ কর্মকার, ৩৫০ টাকা করে(৩৫০*১০০)= ৩৫,০০০ (পয়ত্রিশ হাজার) টাকার বিল জমা দিয়ে উত্তলন করে নিয়ে যায়। যা সরকারী আইন অনুযায়ী দন্ডনীয় অপরাধ। এভাবে আরো ২টি বিল উত্তলন করে নিয়ে যায় এবং আরো দুটি বিল নেওয়ার অপেক্ষায় আছেন।

মাদারীপুর সদর উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী মামুন বিশ^াস বলেন, আমরা পত্রিকার বিল এজির অফিসের মাধ্যমে চেক দিয়ে থাকি, যদি বিলে ভুল হলে এজি অফিস বিল আটকিয়ে দিবে। আমরা খতিয়ে দেখবো। কিন্তু সদর উপজেলা এলজিইডির সকল বিল যাচাই করে অনুমোদন করে দেন এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী মামুন বিশ^াস।

সড়ক ও জনপদ বিভাগ গত ২৩/০২/১৭ ইং ৪*১০= ৪০ ইঞ্চি কলাম প্রকৃত বিল (৪০*১০৪)=৪১৬০ চার হাজার একশত ষাট টাকা। তবে বিল দিয়েছেন ৪০*৩৫০=১৪০০ চৌদ্দ হাজার টাকা। গত ০৭/১১/১৬ ইং ৩*১৪=৪২ ইঞ্চি কলাম প্রকৃত বিল(৪২*১০৪)=৪৩৬৮ কিন্তু অভিজিৎ কর্মকার বিল নিজে বানিয়ে দিয়েছেন(৪২*৩৫০)=১৪৭০০ চৌদ্দ হাজার সাতশত টাকা। এভাবে বিভিন্ন সরকারী অফিস থেকে সময় টিভির সাংবাদিক সঞ্জয় কর্মকার অভিজিৎ@ অভিজিৎ কর্মকার ২ থেকে ৩ লাখ টাকা প্রতারনার মাধ্যমে চুরি করছে।

সড়ক ও জনপদ বিভাগ কর্মকর্তা মোঃ মুকতার হোসেন জানান, দৈনিক দেশকাল পত্রিকার মাদারীপুর প্রতিনিধি ও সম্পাদক কে আমরা কারন দর্শানো চিঠি দেব প্রয়োজন হলে প্রতারনার মামলা করে সরকারী টাকা ফেরত আনা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

© ARTEEBEE Inc. 2016 ‐ 2018 Version: 20180213t091722

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *