সোমবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৮, ১০:৫২ অপরাহ্ন




ভালুকায় বিস্ফোরণ : ভবন মালিকের ছেলে আটক

ভালুকায় বিস্ফোরণ : ভবন মালিকের ছেলে আটক




আরিফুল ইসলাম আরিফ, ভালুকা প্রতিনিধি : ভালুকায় ভবন বিস্ফোরণে ভবন মালিকের ছেলে আটক। ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ী ইউনিয়নের জামিরদিয়া মাস্টারবাড়ি এলাকায়, ভবনে বিস্ফোরণের ঘটনায় ভবন মালিক আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে কলেজ পড়ুয়া ছাত্র শুভকে ময়মনসিংহ ডিবি পুলিশ ঢাকা উত্তরা নিজ বাসা থেকে রাতে আটক করে।

সূত্রে জানাযায়,ভালুকায় ভবনে বিস্ফোরণের ঘটনায় ভালুকা মডেল থানা পুলিশ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করে। মামলাটি কয়েকদিন পূর্বে ভালুকা মডেল থানা থেকে ময়মনসিংহ ডিবি পুলিশে হস্তান্তর করা হয়।

পরে ডিবি পুলিশ মামলা তদন্ত দায়িত্ব পাওয়ার পর রাতে ভবন মালিক আব্দুর রাজ্জাক ঢালীর উত্তরার একটি নিজের বাসায় অভিযান চালিয়ে তাঁর ছেলে কলেজ পড়ুয়া ছাত্র শুভকে আটক করে। ভবন দুর্ঘটনার পর পুলিশ বাদী হয়ে যে মামলাটি করেন সেই মামলায় ভবন মালিক আব্দুর রাজ্জাকের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা প্রকৌশলীসহ কয়েকজনকে আসামীকে দায়ী করে মামলা করা হয়।

সেই মামলায় আটককৃত শুভর নাম নেই। শুভ’র আটকের বিষয়টি নিশ্চত করে ময়মনসিংহ ডিবির অফিসার ইনচার্জ আশিকুর রহমান বলেন, তাঁকে জিজ্ঞাসা বাদের জন্য আটক করা হয়েছে। সে মামলার আফ,আই,আর ভূক্ত আসামী নয়। প্রসঙ্গ,ভালুকা জামিরদিয়া মাস্টারবাড়ি এলাকায় গত ২৪মার্চ রাতে নব নির্মিত ৬তলা ভবনে অবৈধ গ্যাসের লাইনের লিগেজ থেকে বিস্ফোরণের ঘটনাঘটে।

এতে ঘটনাস্থলেই শিক্ষানবিশ এক প্রকৌশলী পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ণ ইউনিয়টের আইসিইউতে পর্যায়ক্রমে আরও তিন শিক্ষানবিশ প্রকৌশলীসহ মোট চার জনের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়। নিহতরা হলেন, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) বস্ত্র প্রকৌশল বিভাগের তৌহিদুল ইসলাম,শাহীন মিয়া, হাফিজুর রহমান ও দীপ্ত সরকার। ওই চার শিক্ষার্থী আব্দুর রাজ্জাকের ৬তলা ভবনের ৩ তলার ফ্ল্যাট বাসা ভাড়া নিয়ে মাষ্টারবাড়ীর স্কয়ার ফ্যাশনে ইন্টার্ন করছিল। গত ১১ মার্চ থেকে ইন্টার্নি শুরু হয়, যা আমাগী ৫ এপ্রিল শেষ হওয়ার কথা ছিলো।

এ ঘটনায় ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে ৬সদস্য বিশিষ্ট ও ময়মনসিংহ পুলিশ সুপারের পক্ষ থেকে ৩সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। দুটি তদন্ত কমিটিকেই ৩কর্ম দিবসের মাঝে তদন্ত রিপোর্ট পেশ করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়ে ছিলো। তদন্ত টিম দুটি ইতোমধ্যেই ঘটনা স্থল পরিদর্শণ করেছে।

জেলা প্রশাসক কর্তৃক গঠিত তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্টেট মোহাম্মদ নায়িরুজ্জামান বলেন,অবৈধ গ্যাসের লিগেজ থেকেই এ দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে আমরা অন্য কোন আলামত পাইনি। তদন্ত রিপোর্ট তৈরি করা হয়ে গেছে এখন ছয় সদস্যের স্বাক্ষর নেয়া হচ্ছে। এ সপ্তাহের মাঝেই রিপোর্ট জমা দিয়ে দেওয়া হবে।

খবরটি শেয়ার করুন..











© All rights reserved 2018 somoyersangbad24.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com