বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮, ০২:৫৭ পূর্বাহ্ন



বিয়ের কথা শুনে মাদ্রাসা ছাত্রীর আত্মহত্যা!

বিয়ের কথা শুনে মাদ্রাসা ছাত্রীর আত্মহত্যা!



কে.এম. রিয়াজুল ইসলাম, বরগুনাঃ বিয়ে দিতে রাজী না হওয়ায় নবম শ্রেনীর এক মাদ্রাসা ছাত্রী বাবা-মায়ের সাথে অভিমান করে কীটনাশক গ্যাস ট্যাবলেট (অ্যলুমিনিয়াম ফসপাইড) খেয়ে আত্মহত্যা করেছে আছিয়া (১৪)। আছিয়া ঘোপখালী গ্রামের আবদুল আজিজ আকনের মেয়ে। ঘটনা ঘটেছে রবিবার সকালে ঘোপখালী আল আমিন মাদ্রাসায়। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে পাঠিয়েছে।

জানাগেছে, উপজেলার ঘোপখালী আল আমিন দাখিল মাদ্রাসার নবম শ্রেনীর ছাত্রী আছিয়া খাতুন। সে ওই মাদ্রাসার দাখিল পরীক্ষায় অংশগ্রহনকারী ওমর ফারুক নামের এক ছাত্রের সাথে গত দেড় বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। এ ঘটনা দু’পরিবার জেনে যায়। ওমর ফারুক জানুয়ারী মাসে মাদ্রাসা থেকে চলে যায়। ওমর ফারুক আড়পাঙ্গাশিয়া গ্রামের আলী আকবরের ছেলে।

পরীক্ষা শেষে ছেলের পরিবার মেয়ের পরিবারের কাছে পারিবারিকভাবে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। কিন্তু এতে রাজি হয়নি মেয়ের পরিবার। রবিবার সকালে ওই ছেলেকে বিয়ে করবে বলে আছিয়া তার মা দেলোয়ারা বেগমকে জানায়। কিন্তু বাবা-মা ওই ছেলের সাথে মেয়েকে বিয়ে দিতে রাজি হয়নি। এ সময় মা দেলোয়ারা বেগম মেয়েকে গালমন্দ করে।

এতে অভিমান করে ওইদিন সকালে মাদ্রাসায় যাওয়ার পথে ঘোপখালী বাজারের একটি দোকান থেকে গ্যাস ট্যাবলেট কিনে খেয়ে ফেলে। পরে মাদ্রাসায় পৌছলে অসুস্থ হয়ে পড়ে সে। মাদ্রাসার শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা উদ্ধার করে তাকে বাড়ীতে পৌছে দেয়। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় স্বজনরা আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। ওই স্বাস্থ্য কমল্পেক্সে চিকিৎসা শেষে কর্তব্যরত চিকিৎসক জিকু শীল পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। পটুয়াখালী নেয়ার পথে শাখারিয়া নামক স্থানে তার মৃত্যু হয়।

আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার গৌরাঙ্গ হাজরা বলেন, কীটনাশক জাতীয় দ্রব্য খেয়ে আছিয়ার মৃত্যু হয়েছে।
আমতলী থানার ওসি মোঃ সহিদ উল্যাহ বলেন,লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে পাঠানো হয়েছে।

খবরটি শেয়ার করুন..








© All rights reserved 2018 somoyersangbad24.com
Desing & Developed BY W3Space.net