বুধবার, ২০ Jun ২০১৮, ০৭:০০ অপরাহ্ন




হাইওয়ে ওসি জসিমের সোর্স বলেই মহাসড়কে দালালদের সিএনজি

হাইওয়ে ওসি জসিমের সোর্স বলেই মহাসড়কে দালালদের সিএনজি




নিজস্ব প্রতিবেদক : উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের হবিগঞ্জ জেলার ৪৫ কিলোমিটার মহাসড়কে  মাহিন্দ্র, ইজি-বাইক, নসিমন, করিমনসহ থ্রি-হুইলার অবাধে চলাচল করছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে থানা পুলিশকে ম্যানেজ করেই চালানো হচ্ছে মহাসড়কে নিষিদ্ধ হওয়া ট্রাক্টর ও সিএনজি। শুধু তাই নয় ওই এলাকা দিয়ে প্রতিনিয়ত চলাচলকারী সিএনজি গুলো থেকে নেয়া হচ্ছে মাসিক চাঁদা।

জানা যায়, কিছুদিন পূর্বে মহাসড়কে দূর্ঘটনা প্রতিরোধে ট্রাক্টর, সিএনজি ও তিন চাকার গাড়ি চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন প্রশাসন। উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ফের শুরু হয় অবৈধ সিএনজি ও ট্রাক্টর চলাচল।

অনুসন্ধানে জানা যায়, শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে থানা পুলিশ মহাসড়কে টহল দিয়ে অবৈধ সিএনজি ও ট্রাক্টর চলাচলকারী কিছু সিএনজি ও ট্রাক্টর আটক করলেও টাকার বিনিময়ে তা ছেড়ে দেয়া হচ্ছে।

গত কয়েকদিন আগে মহাসড়ক দিয়ে সিএনজি চলাচলের অভিযোগে শাহজাহান মিয়া নামে এক চালকের গাড়ি আটক করে শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে থানা পুলিশ। পরে ওই থ্রি-হুইলারের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা দেয়া হবে বলে চালককে হুমকি দেয় পুলিশ। এ ঘটনায় ওই সিএনজি চালক দালাল সিন্ডিকের খপ্পরে পড়ে। পরে দালালদের মাধ্যমে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে সিএনজিটি ছেড়ে আনা হয়।

 

তবে স্থানীয় এলাকাবাসির অভিযোগ হাইওয়ে থানার ওসি জসিমের সাথে সখ্যতা করেই ওই দালাল সিন্ডিকেটটি চালকদের কাছ থেকে আদায় করছে মোটা অংকের টাকা। এদিকে, গত কয়েকদিন ধরে জেলার মাধবপুর- শায়েস্তাগঞ্জের বিভিন্ন পয়েন্টে এ প্রতিবেদক অনুসন্ধান চালায়। অনুসন্ধানের এক পর্যায়ে নতুন ব্রীজ পয়েন্টে দিনে দুপুরে টাকার বিনিময়ে একটি বালু বোঝাই ট্রাক্টর মহাসড়ক দিয়ে চলাচল করতে দেখা যায়। এসময় এ প্রতিবেদকের ক্যামেরায় ধরা পড়ে এ চিত্রটি।

অপরদিকে, মহাসড়ক দিয়ে চলাচলকারী সিএনজি ট্রাক্টরসহ বেশ কিছু যানবাহন কাগজপত্র ত্র“টি থাকায় তা আটক করা হলেও তা থানায় না নিয়ে অন্যত্র রাখা হয় মাধবপুর উপজেলার অদূরে বাদশা কোম্পানী ও আল-আমীন হোটেলের নিকটবর্তী আবু মিয়ার গ্যারেজে। পরে তা দালালদের মাধ্যমে টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেয়া হয় বলেও অসংখ্য অভিযোগ উঠেছে।

এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সিএনজি ড্রাইভার জানায়, আমার সিএনজিটি মহাসড়ক দিয়ে মিরপুর থেকে নতুন ব্রীজ এলাকা ও আশে পাশে চালাই। আর এতে করে প্রতি মাসে শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে থানা পুলিশকে টাকা দিতে হয়। না হলে সিএনজির উপর মামলার হুমকি দেয়া হয়।

অপরদিকে মাধবপুর এলাকার অনিচ্ছুক এক সিএনজি চালক জানায়, আমার সিএনজি মাধবপুর থেকে তেলিয়াপাড়া চালাই, গত মাসে আমার সিএনজি ৩বার আটক করেছে আমি প্রতিবারই ৮হাজার টাকা করে দিয়ে দালালদের মাধ্যমে ছাড়িয়ে নিয়ে আসছি।

চালকদের অভিযোগ, সকল কাগজপত্র থাকার পরও হাইওয়ে ওসি জসিমকে টাকা দিতেই হবে। না দিলে তাদের গাড়ি আটক রেখে দুর্ব্যবহার সহ মামলার ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে। এছাড়াও আটককৃত প্রতি সিএনজি গাড়ি থেকে কোন রশিদ ছাড়াই ৮/১০/১২ হাজার টাকা নিয়ে ছেড়ে দিচ্ছে। মটরযান আইনে বিআরটিএ ও কোর্টের অনুমতি ছাড়া কোন গাড়ি ছাড়ার বিধান না থাকলেও কার্যকর হচ্ছে না এই জেলাতে। আর এ সুযোগকে কাজে লাগিয়েই হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা।

প্রতি মাসে হাইওয়ে ওসি জসিমের  বানিজ্য ২০ থেকে ৩০ লাখ টাকা।

মহাসড়কে ৪ দালালে চোখ রাখছে প্রতিনিয়ত। দলবেধে সিএনজি চলাচল করলেই দালালদের মাধ্যমে খবর পৌছে যায় হাইওয়ে ওসি জসিমের কাছে। সময় মতো প্রতিদিন উড়ে এসে জুড়ে বসে ডজনখানেক থ্রি-হুইলার আটক করে পরে তা আবার মহাসড়কেই দালালদের মাধ্যমে রফাদফা করা হচ্ছে।

দালাল আলমগীরের চলছে ২/৩টা সিএনজি, এক্তিয়ারপুর গ্রামের দালাল সোহেলের নয়ন পরিবহান নামে চলছে ৩টা সিএনজি, বেজুড়ার দালাল রোকন উদ্দিনের চলছে ‘গাউছিয়া মিরানিয়া’ নামে ২/৩টা সিএনজি,  জিন্নতপুরের দালাল সোহেলের চলছে ২/৩টা থ্রি-হুইলার। হাইওয়ে ওসি জসিমের নিয়ন্ত্রনে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে চলছে এসব অবৈধ ফিটনেস বিহীন গাড়ী।এসব দেখার যেন কেউ নেই।

যানবাহন চলাচল নিরাপদ আর যাত্রীসেবা নিশ্চিত করার নিমিত্তে হাইওয়ে পুলিশের সমন্বয়ে হাইওয়ে থানা স্থাপন করা হয়। হাইওয়ে পুলিশের দায়িত্ব পালনে অবহেলা আছে বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করে। মহাসড়কে প্রতিদিন ঘটছে সড়কদুর্ঘটনা । গত দু’বছরে সড়কে প্রান গেল  গত ৩০/৪০ জনের।

স্থানীয়রা আরো অভিযোগ করেছেন ইদানিং যানজট নিরসনে হাইওয়ে থানা কোন ভূমিকা রাখছে না। তাঁরা শুধু চাঁদাবাজি নিয়েই ব্যস্ত সময় পার করছে। বিষয়টি নিয়ে শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে থানার ওসি জসিমের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তিনি, একজন ইমাম সাহেবের মতো ইসলামিক লেকচার দিয়ে বিষয়টি এড়িয়ে যান।

খবরটি শেয়ার করুন..




Loading…








© All rights reserved 2018 somoyersangbad24.com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com