সোমবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮, ০১:১৬ অপরাহ্ন



মাহী-মান্নার ফোনালাপ ফাঁস

মাহী-মান্নার ফোনালাপ ফাঁস



দিনভর নানা নাটকীয়তার পর শনিবার সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাবে আত্মপ্রকাশ ঘটে সরকারবিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোকে নিয়ে গড়া জোট ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট’। এই জোট গড়ার প্রক্রিয়ায় শুরু থেকে সরব থাকলেও বিকল্পধারা সভাপতি বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন বিকল্প ধারাকে বাদ দিয়েই বিএনপিসহ কয়েকটি দলকে নিয়ে ঘোষণা করা হয় জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন নেতৃত্বে গঠিত হওয়া এই জোটে বিকল্প ধারার আসার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত ঐক্যফ্রন্টের আত্মপ্রকাশ অনুষ্ঠানে অংশ নেয়নি দলটি। পরে জানা যায়, ঐক্যফ্রন্টের আত্মপ্রকাশ নিয়ে দুপুরে ড. কামাল হোসেনের বেইলি রোডের বাসায় বৈঠকে অংশ নিতে গিয়েও ফিরে যেতে হয়েছিল বি চৌধুরী ও তার ছেলে মাহীকে।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ঘোষণা নিয়ে এসব ঘটনার প্রশ্ন-পাল্টা প্রশ্ন জানা গেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া একটি ফোনালাপের অডিওতে। নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না ও বিকল্প ধারার যুগ্ম মহাসচিব মাহী বি.চৌধুরীর মধ্যে ওই ফোনালাপে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নামে ‘রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্র’ হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন মাহী।

ঐক্যফ্রন্টের সংবাদ সম্মেলনে ঘোষণাপত্র পাঠ করা মান্নাকে নিয়ে প্রশ্ন তোলেন মাহী। বিকল্প ধারাকে পাশ কাটিয়ে ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট’ ঘোষণার প্রক্রিয়াকে ‘রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্র’ আখ্যা দেন তিনি।জবাবে মান্না জানান, তিনি ‘সিচ্যুয়েশন’র শিকার হয়েছেন। মান্না ও মাহীর ফাঁস হওয়া ফোনালাপটি ঢাকাটাইমসের পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

মাহী: মান্না ভাই

মান্না: হ্যাঁ ভাই

মাহী: আপনি কি আব্বার সঙ্গে কথা বলে ঘোষণাপত্র পাঠ করলেন মান্না ভাই?

মান্না: না না না, পিছনের সিনটা হয়েছে, আমারও হয়তো ভালো ভাবা দরকার ছিল। কারণ হলো যে (আ স ম) রব ভাই কথা বলেছিলেন স্যারের (বি চৌধুরী) সাথে এবং স্যার বলেছিলেন হ্যাঁ আমি বসে চিন্তা করছি, আধা ঘণ্টা পর জানাচ্ছি। আমি ভাবছি উনি আসবেন।

মাহী: না না, আব্বা আমার পাশে বসেই রব চাচার সঙ্গে কথা বলছেন। আর উনি যদি বলে থাকেন তাহলে সেটা সত্য নয়। আর আব্বাতো আপনার সাথে নিজে কথা বলছেন মান্না ভাই।

মান্না: না না আমার সাথে কথা বলেছেন কি। কথাতো সব ঠিকই আছে, যেগুলো ভুলভাল ছিলো সেগুলোর ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে। আমার অনেকগুলো কথা আছে সামনাসামনি বলব। ফোনে সব বলতে পারব না। একটা সিচুয়েশন হয়েছে, যেটা আমি এভয়েড করতে পারিনি। আমি এভয়েড করতে পারতাম, যদি এই ঘটনা না ঘটতো… কারণ অলদো আই সেইড নো, অ্যান্ড ইট ওয়াজ টোল্ড। তারপরে সবার কথাবার্তা শোনার পরে আমি অ্যাগ্রি হয়েছি। তখনও ঘোষণাপত্র পড়ার কথা হয়নি, আমিতো প্রথমে ভাবছি যাবোই না।

মাহী: কিন্তু সকাল থেকে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন সাহেব কামাল হোসেন সাহেবকে সরাই নিয়ে গেলেন ওনার বাসা থেকে। এ চিন্তাটা আগেই ছিলো মওদুদ সাহেবের যে- বি চৌধুরী ও কামাল হোসেনকে একলা বসতে দেওয়া যাবে না। এবং বি চৌধুরীকে অপমান করলেন। এই যে একটা পরিকল্পনা, এই একটা চক্রের মধ্যেতো আপনারা পড়ে গেলেন মান্না ভাই।

মান্না: না না না, এসব চক্রের মধ্যে পড়বো না, বাইরেই থাকবো। চিন্তা করেন না, আপনাদের আনাও যাবে। আচ্ছা আপনি আমাকে কেনো দোষারোপ করছেন মিছামিছি? আমি কি বেইমানি করলাম?

মাহী: না না আমি এই ওয়ার্ডটাই উচ্চারণ করি নাই। বাট আমি বলছি আব্বা যখন নিজে আপনাকে বলছেন, আপনি আমাদের প্রেস কনফারেন্সে থাকবেন না, ওখানেও থাকবেন না। এটা আমরা আশা করেছিলাম। কিন্তু আপনি যখন ঘোষণাপত্র পাঠ করলেন তখন আব্বা বললেন, হি ওয়াজ শকড- আমিতো মান্নার জন্য কামাল হোসেনের সাথে ফাইট করেছি। আজ সেখানে মান্না কামাল হোসেনের কাছের লোক হয়ে গেলো, আমাকে অপমান করলো? এভাবে এসে চলে গেলো?

মান্না: আই আন্ডারস্ট্যান্ড দ্যাট। আপনি আসলে রাইট কথা বলেছেন। আমাকে ধাক্কা দিয়ে…দ্যাট টাইম ইওর ফাদার সেভড মি। সেটা আমি ভুলছি না।… তার মানে গ্রেটার ইউনিটির বাইরে চলে গেছে, তাতো না।

মাহী: কিসের গ্রেটার ইউনিটি? কার সাথে, যে লোক ভদ্রতা জানে না তার সাথে?

মান্না: এরকম পলিটিকসে অজস্র হয়…

মাহী: না মান্না ভাই, আমরা সেরকম পলিটিকস করি না মান্না ভাই। আমি মনে করি- আপনি, রব চাচা, আপনারা সবাই মিলে একটা কন্সপিরেসির শিকার হয়ে গেলেন। আল্লাহর রহমতে আমরা সেখান থেকে বাঁইচা গেলাম।

মান্না: বেঁচে গেলেন মানে কী, এখান থেকে বেরিয়ে গেলেন?

মাহী: আমরা বেরিয়ে যাইনি, আপনারা বের করে দিলেন। আপনারা মিটিং করলেন, আমাদের ডাকলেন না। আপনারাতো আমাদের ডাকেনইনি। আপনারা আজকে ঘোষণা দেবেন, আমাদের সঙ্গে বলছেন? বি চৌধুরী সাহেবের সাথে আলোচনা করছেন? বি চৌধুরী সাহেব কামাল হোসেনের বাসায় যাবেন, উনিতো বাসায় ছিলেনই না, আবার একটা ফোনও করেও দুঃখ প্রকাশ করলেন না। আপনারা প্রেস কনফারেন্স করবেন, যৌথ ঘোষণা দেবেন, আমাদেরকে বলছেন? আমাদেরকে জানাইছেন? আমরা কিন্তু ঐক্য থেকে বের হয়ে যাইনি, তবে ঐক্য কে চায় না, জাতির সামনে পরিষ্কার হয়ে গেছে।

মান্না: এখন ঐক্য যদি চায় আপনারা আসেন, তাহলে কী করবেন?

মাহী: ঐক্য তো চায় না, আপনারাতো বলেই দিলেন।

মান্না: প্রেস কনফারেন্সে আপনাদের কথা বলা হয়েছে, যে ওদের আসার কথা ছিল। উনি (বি চৌধুরী) হয়তো যোগ দেবেন।

মাহী: প্রেস কনফারেন্সে আমাদের কথা বলা হয়নি, এটা মিথ্যা কথা। এটা জাতির সঙ্গে মিথ্যা বলা, প্রতারণা করা। উনাকে প্রেস কনফারেন্সে আসার কথা কেউ বলেনি।

মান্না: না এটা বলা হয়েছে, কোনো ভুলের কারণে হোক।  উনি এখানে নাই, কিন্তু তাকে ঐক্যের মধ্যে আছেন আমরা ধরেই আছি।

মাহী: কাদের সাথে, কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ঐক্য? কামাল হোসেন প্রধানমন্ত্রীর হওয়ার স্বপ্নে বিভোর হয়ে আছেন। ওনার নেতৃত্বে জামায়াতের সঙ্গে গোপনে আঁতাত হবে, সেগুলির সঙ্গে আমরা থাকতে চাই না তো। আলহামদুলিল্লাহ…আল্লাহ যা করেন মঙ্গলের জন্য করেন। বাট প্রশ্নতো সেইটা না, আপনারা জাতির সামনে পরিষ্কার করেই বলতেন যে, উনাকে দাওয়াত দেওয়া হয় নাই। উনাকে না বলে আমরা চুরি করে মিটিং করছি, এগুলো বললো না কেনো।

মান্না: এরকম প্রশ্নোত্তর কেউ করে নাই তো…করলে

মাহী: আপনারা নিজেরাই বলতেন কামাল হোসেন বাসা থেকে পালাই গিয়া উনার অফিসে বসে ওনাকে (বি. চৌধুরী) বাদ দিয়ে আমরা একটা ঐক্য করতে যাই, গোপনে গোপনে জামায়াতের সঙ্গে আঁতাত করে উনাকে বাদ দিয়ে ঐক্য করতে চাই, বলতেন?

মান্না: ভাই এরকম বলেন কেনো? সেটা ভালো কাজ হয়নি, মানছি, তার মানে এই না যে সেখানে বলবো আমরা খুব অন্যায় কাজ করছি। তাহলে প্রেস কনফারেন্সে আসলেন কেন? ওটাতো হয় না। যেহেতু ঐক্যটা করতে চাই, এজন্য করেছি। আপনার কথার পর বলবো যে, একটা বিভ্রান্তির মধ্যে ছিলাম।

মাহী: মান্না ভাই আপনাকে আল্লাহর কসম বলি, আমি আপনাকে পছন্দ করি দেখে বলতেছি। ঐক্যের ব্যাপারে আপনি হানড্রেড পারসেন্ট আন্তরিক আমিও ঐক্যের ব্যাপারে হানড্রেড পারসেন্ট আন্তরিক। বাট ঐক্যের নাম দিয়ে এখানে কোনো রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্র হইতেছে, আপনাকে দিয়ে ঘোষণাপত্র পাঠ করাইতেছে। আমাকেও সেখানে ঢোকানোর চেষ্টা করছিলো। আজকের এ কথাটা শুধু মনে রাইখেন আর কিছু বলবো না।

মান্না: ও…হ…চিন্তা করবো, আরও কথা বলবো সামনা-সামনি।

মাহী: জি, আমার মনে হয় একটা চক্রান্তের মধ্যে আপনারা ভিকটিম হয়ে যাচ্ছেন মান্না ভাই।

মার মনের বিশ্বাস থেকে বললাম, এখানে ঐক্য প্রক্রিয়া নামে একটা চক্রান্ত, একটা ষড়যন্ত্র হইতাছে। এবং এটার মধ্যে আমাকে জড়ানোর চেষ্টা করা হইছিল, আল্লাহর রহমত ছিলো আমি বাইচা গেছি। আপনাকে দিয়ে ঘোষণাপত্র পাঠ করাইলো। ইট ইজ নাথিং বাট অ্যা কন্সপিরেসি। এখানে কোনো জাতীয় ঐক্যের বিষয় নেই। একটা কন্সপিরেসি হচ্ছে, চক্রান্ত হচ্ছে।

মান্না: আপনি যেরকম মনে করছেন, আমি সেভাবে মনে করছি না। বাট আজকের ঘটনায় আমি মর্মাহত।

মাহী: আপনি মনে করছেন আজকের ঘটনাটি এমনি এমনি, ভুলে-ভুলে হয়েছে আপনার মনে হয়? এর বাইরে-পেছনে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক চক্রান্ত নাই?

মান্না: ভুলে-ভুলেও মনে করছি না, কিন্তু অতোবড় জিনিসও ভাবছি না।

মাহী: অনেক বড় জিনিস হয়েছে, একটুখানি নজর দিয়ে দেখেন কারা-কারা জড়িত, কারা-কারা বি চৌধুরী ও কামাল হোসেনকে আজকে একসাথে বসতে দিলো না। কিভাবে ষড়যন্ত্র করে প্রেস কনফারেন্সটা হলো, কিভাবে আপনাকে দিয়ে ঘোষণাপত্র পাঠ করাইলো, আপনি বিবেচনা করে দেখেন আপনারা কিসের মধ্যে ঢুকতেছেন, আমি কিছু বলবো না।

মান্না: আচ্ছা আলাপ করবোনি।

মাহী: জি, ইনশাল্লাহ।

খবরটি শেয়ার করুন..








© All rights reserved 2018 somoyersangbad24.com
Desing & Developed BY W3Space.net
Veritabanına bağlantı sağlanamadı