বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:২৪ পূর্বাহ্ন



নরসিংদী জেলাজুড়ে উপজেলা নির্বাচনের হাওয়া বইছে

নরসিংদী জেলাজুড়ে উপজেলা নির্বাচনের হাওয়া বইছে



আ.লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ

এম. লুৎফর রহমান, নরসিংদী প্রতিনিধি : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন শেষ হওয়ার পর এবার নরসিংদীর ৬টি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন আওয়ামী লীগ দলীয় সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীরা। এরই মধ্যে প্রতিটি উপজেলায় বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যানসহ আওয়ামী লীগ দলীয় একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশীর নাম শোনা যাচ্ছে। কর্মী সমর্থকরা নিজ নিজ পছন্দের নেতাকে উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চান বলে দাবী উত্থাপন করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারনা ও আলোচনা শুরু করেছেন। সম্ভাব্য প্রার্থীরাও লবিং করতে দৌড়ঝাপ শুরু করেছেন দলের জেলা, উপজেলা এমন কী কেন্দ্রেও।

তবে এখন পর্যন্ত উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে দলের কেন্দ্রীয় কোন নির্দেশনা নেই বলে জানিয়েছেন নরসিংদী জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আবদুল মতিন ভূঁইয়া। আওয়ামী লীগ দলীয় নেতাকর্মীরা জানান, যারা উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে ইচ্ছুক তারা অনেকটা আগে থেকেই মানসিকভাবে প্রস্তুত ছিলেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে শেষ হওয়ার পর সারাদেশের ন্যায় নরসিংদী জেলাতেও এখন উপজেলা নির্বাচনের বাতাস বইতে শুরু করেছে।

বিশেষ করে নির্বাচন কমিশনের নির্বাচনী আভাস ঘোষণার পর দলীয় লবিং শুরু করেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। স্থানীয় নবনির্বাচিত সাংসদসহ জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারাও উপজেলা চেয়ারম্যান পদে লড়তে ইচ্ছুক সম্ভাব্য প্রার্থীদের নিয়ে ভাবতে শুরু করেছেন। এবারের নির্বাচনে আওয়ামী লীগে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে লড়তে ইচ্ছুক প্রার্থীর সংখ্যা বেশি বলেও রাজনৈতিক অঙ্গনে আলোচনা হচ্ছে। সেজন্য দলীয় মনোনয়ন পেতে সম্ভাব্য প্রার্থীরা জোরেসোরেই লবিং শুরু করেছেন। উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে নিজের যোগ্যতা, গ্রহণযোগ্যতার মাপকাঠি প্রকাশ করতে কৌশলে লবিং গ্রুপিং করছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা।

এখন পর্যন্ত জেলার ৬ উপজেলায় উপজেলা চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে ইচ্ছুক যাদের নাম আলোচনায় এসেছে তাদের মধ্যে রয়েছেন, নরসিংদী সদর উপজেলায়-সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চিনিশপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আফতাব উদ্দিন ভূঁইয়া, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সফর আলী ভূঁইয়া, মাধবদী শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি সালাহ উদ্দিন আহমেদ ও সুইডেন প্রবাসী ব্যবসায়ী আতাউর রহমান। পলাশ উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি সৈয়দ জাবেদ হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি আব্দুল আলী ভূঁইয়া ছাড়া এখনও পর্যন্ত অন্য কারও নাম শোনা যায়নি।

শিবপুর উপজেলায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হারুন অর রশিদ খাঁন, সাধারণ সম্পাদক সামসুল আলম ভূঁইয়া রাখিল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ আলম ভূঁইয়া, কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের সহ-সভাপতি নূর উদ্দিন মোল্লার নাম শোনা যাচ্ছে। মনোহরদী উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম খান বীরু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট ফজলুল হক, সহ-সভাপতি হাবিবুর রহমান রঙ্গু, সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াশিষ রায়, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আপেল, মোল্লা জহিরুল ইসলাম মুকুল, লায়ন জাহাঙ্গীর আলম, সামসুন্নাহার এমিলি রয়েছেন আলোচনায়।

বেলাব উপজেলায়, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান সমসের জামান ভূঁইয়া রিটন ও যুগ্ম সম্পাদক শরীফ উদ্দিন খান মোমেনের নাম শোনা যাচ্ছে। রায়পুরায় আলোচনায় আছেন বর্তমান চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফজাল হোসাইন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সাদেক, শ্রীনগর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান রিয়াজ মোর্শেদ খান রাসেল, রায়পুরা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহবুব আলম শাহিন।

নরসিংদী সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী আফতাব উদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, যেহেতু এবারের উপজেলা নির্বাচন দলীয় প্রতিকে হবে, সেহেতু মনোনয়ন পাওয়ার উপরই নির্ভর করছে নির্বাচন করা না করা। দল যদি তৃণমূলের মতামতকে প্রাধান্য দিয়ে মনোনয়ন দেয় তাহলে মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদী। শিবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সামসুল আলম ভূঁইয়া রাখিল বলেন, দীর্ঘদিন ধরে দলের নীতি আদর্শ মেনে দলের জন্য কাজ করছি। আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে আমি একজন প্রার্থী।

সেলক্ষে অনেক আগে থেকেই কাজ করে যাচ্ছি। তৃণমূলের নেতাকর্মীরাও চাইছেন যেন আমি নির্বাচন করি। বেলাব উপজেলার শরীফ উদ্দিন খান মোমেন বলেন, দীর্ঘদিন ধরে দলের একজন কর্মী হিসেবে কাজ করে যাচ্ছি। আশা করি সবদিক বিবেচনা করে দল আমাকেই মনোনয়ন দেবে। এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মতিন ভূঁইয়া নরসিংদী বলেন, সংসদ নির্বাচন শেষ হওয়ার পরপর অনেকেই ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হতে চান এমন প্রচার প্রচারনা চালাচ্ছেন। তবে এখন পর্যন্ত উপজেলা নির্বাচন নিয়ে কেন্দ্রীয় কোন নির্দেশনা জেলা আওয়ামী লীগ পায়নি। সম্ভাব্য প্রার্থীদের কেউ তাদের আগ্রহও আমাদের কাছে প্রকাশ করেননি।

খবরটি শেয়ার করুন..








© All rights reserved 2018 somoyersangbad24.com
Desing & Developed BY W3Space.net